Daffodil College Alumni Students(Nirob Mojumder)

কর্মমুখর পৃথিবীর সামনে মাথা উঁচু করে দাঁড়ানো নীরব মজুমদার

দূর থেকে আসাদ গেটে দাঁড়িয়ে থাকা ছেলেটাকে চেনা চেনা লাগছিল। আরও একটু এগিয়ে   গেলাম- ওমা! এ তো আমাদের ছাত্র নীরব,নীরব মজুমদার।

তুমি এখানে?

ক্লাস করনি?

 নীরবের প্রত্যুক্তি -না ম্যাডাম।

 একটু রাগ হলো বৈকি। আজকে ক্লাসে ‘হৈমন্তী’ গল্প পড়ালাম-যৌতুকের বলী হৈমন্তী, And she is Dead কিন্তু ছেলেটা যে কিছুই জানতে পারলো না- তার কী হবে?

প্রত্যুত্তরে কিছু একটা বলতে যাচ্ছিলাম, নীরব কাছে এসে বিনীত স্বরে বললো,-

 -ম্যাডাম কোথায় যাবেন?    

 -যাবো তো মিরপুর, কেন?

 -গাড়ি এখনই এসে পড়বে। 

গাড়িতে উঠতে উঠতে বললাম,-কাল ক্লাস করবে। 

পরদিন সকালে ক্লাসে নীরবকে দেখলাম নীরবে বসে আছে; গুরুর নির্দেশ পালন করেছে। ক্লাস শেষে বের হয়ে আসছিলাম, পেছন থেকে নীরব বললো

 -ম্যাডাম, টিফিনে ছুটি লাগবে।  

-না ছুটি হবে না। নীরবের দু‘জন সতীর্থ ওর পাশে দাঁড়ানো ছিল। একে অপরের মুখের দিকে চাইতে লাগলো। বললাম -সবাই ক্লাসে যাও। সতীর্থ দু‘জন এগিয়ে এসে বললো

 – ম্যাডাম ও তো একটা ‘পার্টটাইম’ জব করে -তাই আরকি

– নীরবকে ডেকে নিয়ে যা জানলাম-আমি তার জন্য মোটেও প্রস্তুত ছিলাম না। 

চার ভাই এক বোনের সংসারে নীরব সবার বড়, বাবা মারা গিয়েছেন বছর পাচেক হলো। অসহায় মা,ভাই-বোনের সংসারের হালটা ছাত্রাবস্থায় তাই নীরবকেই শক্ত হাতে ধরতে হয়েছিলো।  ওকে ছুটি দিলাম। এরপর যখনই আসাদ গেটে গিয়েছি, আমার দু‘চোখ ওকেই খুঁজে বেড়াতো। দেখা হলেই এগিয়ে আসতো। কালো ব্যাগ-কখনো হাতে, কখনো বা কাঁধে ঝুলতো। নীরব ছুটি নিয়ে চলে গেল। 

ভাবনার অতল সাগরে আমি শুধু ভাবছিলাম-জীবন যুদ্ধ কতটা কঠিন, তা বাস্তবের মুখোমুখি দাঁড়ালে বোঝা যায়, যেমনটা বুঝেছিলো নীরব। সিটিং সার্ভিস বাসের সামান্য টিকিট বিক্রেতা নীরব মজুমদার বুঝেছিলো- মানুষ নিজেই নিজের সৌভাগ্যের স্থপতি, তার সাফল্যের একনিষ্ঠ কারিগর। এ পৃথিবী অলস কর্মভীরুদের জন্য নয়। বুঝেছিলো- কর্মই জীবন, কর্মের মধ্যেই জীবনের প্রকৃত প্রতিষ্ঠা। পর মুখাপেক্ষী নয়,নীরব কর্মমুখর পৃথিবীর সামনে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছিল নিজের ভাগ্যকে গড়ার দুর্লভ সুযোগ পেয়ে। সে এখন দেশের অন্যতম শিল্প প্রতিষ্ঠান ‘ওয়ালটন’ এর ‘অথরাইজড সার্ভিস পার্টনার’ হিসেবে ব্যবসা করছে।

জীবনের এই পর্যায়ে এসেও নীরব তার প্রিয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ড্যাফোডিল কলেজের কথা ভুলতে পারেনি। সে বার বার তার কলেজের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছে। অনেক শিক্ষকের নাম সে কখনো ভুলতে পারবে না,যারা তাকে অনুপ্রেরণা যুগিয়েছেন। ভুলতে পারবে না কষ্টের মধ্যে সেই মধুময় অতীতকে। বর্তমানে তার নিজের একটা সংসার হয়েছে; তার ঘর আলো করে এসেছে একমাত্র মেয়ে সিদরাতুল নিহা। নীরবের পরিবারের জন্য ড্যাফোডিল পরিবারের পক্ষ থেকে একগুচ্ছ লাল গোলাপ শুভেচ্ছা।

Daffodil International College Blog(Sanchita

Adaptation of Education during ‘Covid-19 Pandemic

Adaptation of Education during ‘Covid-19 Pandemic

Julie Gard, a professor of University of Wisconsin-superior, writes a poem titled as- “An Invocation for Learning and Safety” for academics across the country who are teaching during a time of crisis and uncertainty. In this poem, she suggests us how to overcome any critical situation. She utters-

“To live an altered life that is still full of meaning

                                         to keep learning and dreaming in a time of crisis,

                                         to let crisis influence us but not dissuade us

                                         so that it’s not our roadblock, but our material.

                                         Let us continue this experiment together,

                                         with every precaution possible, borne of commitment,

                                         curiosity and love.

                                         Let us be open to transformation.”

It was December-2019, suddenly a news spread out around the world that a virus named as ‘Corona’ was identified in Wuhan of China. The virus caused a wide spread epidemic throughout China. Chinese health officials took the unprecedented measure of quarantining nearly 60 million people. Despite the massive quarantines, the virus spread beyond China’s borders to other parts of the world. It was confirmed to have spread to Bangladesh in March 2020. In order to protect the people of our country government first declare lockdown throughout the country from 17 March to 30 May gradually and prepare some necessary steps to spread awareness to keep this syndrome away from us.

Since 17 March, 2019 to till now all the educational institutes in our country have remained closed. Undoubtedly, the direct and most immediate impact of the COVID-19 on the educational sector is the loss of learning opportunities. To help students deal with the adverse impacts of school closures, the government introduced remote learning through Television, Mobile phones, Radio and the Internet. From March, 2019 in pandemic situation, e-learning or distance learning has gained popularity in the education sector.

Online Class
Online Class

We can also incorporate Facebook Messenger, WhatsApp and YouTube Channels. We are running into the 21st century where technology knows no bounds. This is the face of radical development where technology is taking over every niche and corner. Smart phones, Laptop and Tablets are no more unknown words to this generation. Now, the Covid-19 situation shows us the alternative way to be habituated with 21st century’s educational skills. For an example, there is a picture of the celebration of the birth centenary of the Father of nation, Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman which we arranged virtually.

মুজিববর্ষ উদযাপন
মুজিববর্ষ উদযাপন

To cope up with pandemic situation, we are trying to improve our e-learning activities day by day. Every teacher should encourage the young learners to accept the challenges of the 21st century as well as this pandemic situation by using latest modern technologies. In this connection, Covid-19 plays a positive role for developing e-learning not only in education sectors but also world trade, commerce and business sectors largely. Alfred Tennyson truly says in his famous poem- ULYSSES

“………..………………. yearning in desire

To follow knowledge like a sinking star,

Beyond the utmost bound of human thought”.

Being a teacher of Daffodil International College, I am pleased and grateful to the management of Daffodil Family. Because our honorable & far sighted Chairman, Dr. Md. Sabur Khan Sir, seeing the condition of Wuhan of China, instructed us to be prepared with e-learning so that our learners cannot deprive of learning procedure. Since then, we have continued our academic activities through using technologies with full swing. In this regard, I am also grateful to our honorable CEO Sir, COO Sir, Executive Director Sir & Principal Sir for their direct guidance to cope up with this adverse situation. Now we are teaching our students through Google meet, Google classroom, and e-learning courses of Smartedu. Not only that our students are also attend the Lab Classes virtually and given their Homework, Assignment, Examinations through using these platforms. Alhamdulillah, now our teachers, staffs and students can use these platforms successfully and they are going forward day by day.

Smart edu
Smart edu

Besides education, our students are participating in various co-curricular activities through online. They have proved their talents through achieving many awards. We also celebrate our national days like – International Mother Language Days, Independence Day, Victory Day, National Mourning day, the birth centenary of the Father of Nation, Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman, Bengali New Year through using online platform. It is noteworthy that all the teachers, students and staffs of our institution attended those program maintaining the dress code. (based on the significance of the days) All these activities are done through e-learning platform which were previously beyond our imagination. Here is a snap of our students who took part in various competition during this Covid-19.

Student Success in various competition
Student Success in various competition

To conclude, I like to say that although Covid-19 has taken away some valuable lives, it has given us many positive lessons. Especially, it plays a very positive role for developing e-learning almost in every sectors of life. It also teaches us to be mentally strong at any adverse situation, technologically updated. Moreover, we have to be more conscious about taking the precautionary measures against Covid-19 pandemic to avoid this virus.

-Sanchita Nargees

Sr. Lecturer

Daffodil International College

Daffodil college Alumni Success story of Jawadul Islam Joy(DIC)

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার অভিজ্ঞতা নিয়ে লিখেছে জাওয়াদুল ইসলাম জয়

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল কলেজের ২০১৭ – ২০১৮ সেশনের শিক্ষার্থী মোঃ জাওয়াদ ইসলাম জয় জানালো প্রাচ্যের অক্সফোর্ড খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার অভিজ্ঞতা।

২০১৯ সাল, সদ্য উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা দিয়েছি ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল কলেজ থেকে।  সবার মতই আমার ও আশা কোন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার। পরীক্ষা শেষ হতে না হতেই শুরু করে দিলাম কোচিং। যদিও প্রথম প্রথম আমার ভিতরে অনেক ভয় কাজ করত। আমি মোটামুটি  কনফিডেন্ট ছিলাম কোথাও চান্স পাব না। যেহেতু ছোটকাল থেকে ছবি আঁকার প্রতি একটা নেশা ছিল তাই পরীক্ষা দিলাম প্রথমেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘চ’ ইউনিটে। ফলাফল পেয়ে খুশি তো হয়েছিই, অবাকও কম হইনি। বাবা-মা, ভাই-বোন ও বন্ধু সবার ইচ্ছায় ভর্তি হয়ে গেলাম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে চারুকলা অনুষদের “মৃৎশিল্প” বিভাগে। 

বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির পর অনেক কিছুই বদলে গেছে। যেটাকে আমি “positive change” হিসেবেই বিবেচনা করি। কলেজ জীবনে শিক্ষকদের কাছ থেকে আমার যা কিছু অর্জন তার সবটুকু ঢেলে দিয়েছি চারুকলা প্রাঙ্গণে। সামাজিকতা, মানুষের সাথে আচার – আচরণ যা আমাকে সামনে এগিয়ে যেতে সাহায্য করেছে । প্রাচ্যের এই অক্সফোর্ডে পড়ালেখা করেছেন দেশের বহু জ্ঞানি ও গুণীজন। হাজারো জ্ঞানের সমাহার এখানে যা প্রতি মুহূর্তে অনুভব করি। বিশ্ববিদ্যালয়ে উঠার পর অনেক জ্ঞান অর্জন করেছি এবং এখনো করছি, কারন জ্ঞান অর্জনের কোন শেষ নেই। চারুকলায় পড়ার ফলে ছবি আঁকার অনেক প্লাটফর্মের সম্পর্কে জেনেছি, এবং আমার ছবি আঁকার মান উন্নত করতে সক্ষম হয়েছি। শিক্ষকরা মন দিয়ে শেখান। বড় ভাই ও আপুরা বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে সহায়তা করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার ফলে বিভিন্ন সুযোগ পাচ্ছি। করোনা মহামারীর কারনে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ না থাকলে বিভাগীয় বার্ষিক প্রদর্শনীতে অংশগ্রহন করতে পারতাম। তবে লকডাউনে অনলাইন প্রদর্শনীতে অংশগ্রহন করেছি। বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহন করেছি। হয়ত মহামারী না থাকলে আরো অনেক সুযোগ পেতাম। যাইহোক গত ২ বছর আগের আমি-র সাথে আজকের আমি অনেক পার্থক্য রয়েছে। ভবিষ্যতে ইন-শা-আল্লাহ আরো ভালো কিছু করবো। জীবনে এতদূর আশার পেছনে আমাকে সাহায্য করেছে আমার বাবা-মা-বোন, স্কুল ও কলেজের সকল শিক্ষক ও শিক্ষিকা, এবং আমার কয়েকজন বন্ধু। 

Daffodil International College Blog(Alia Rawshan Banu)

The Importance of Reading Skills and the Challenges our Students face while Reading an English text

English is used almost everywhere around the world as a mode of communication and contact
with people for different purposes. So, English is taught and learnt as foreign or second language for
communication, higher study and getting a good job etc. In Bangladesh, English is taught as foreign
language and is considered as compulsory from primary to tertiary education. To learn the language
effectively, we need to achieve mastery over the four basic skills of language learning such as Reading,
Writing, Listening and Speaking. In order to gain expertise in these skills, the students have to follow
some strategies thoroughly and appropriately.
Among the four basic skills of language learning, reading is one of the most important skills in
which the students of English as Foreign Language (EFL) must achieve proficiency in order to learn
the target language successfully. During our waking hours, we read in a way or another. For example,
we read newspapers, books, articles, letters, emails or have a glimpse at the headlines or signboards or
the label of any packet or bottle of medicine etc. So, reading is the most significant part of language
learning because it helps the learners develop other related skills like grammar, vocabulary,
pronunciation, fluency in speaking and writing also. For this purpose, the use of different reading
strategies are emphasized greatly to improve students’ basic reading skills and this article aims to
explore the challenges of reading skills among the students of Bangla Medium Institutions of our
country while reading an unknown English text.
In recent decades, improvement in reading skills have been one of the main areas of interests.
Due to ever increasing demand of reading in every aspect of our life, it is essential to find new methods
or techniques to improve students’ reading skills. Effective reading strategies are essential for the
improvement of reading skills and they should be promoted in English language teaching. Our students
don’t find interest in reading because of the vocabulary problem and the obstacles in pronouncing new
words. While reading an unknown English text, they have been found stammering and this makes
them reluctant to continue reading.
As the students have poorer knowledge in English vocabulary, they are not motivated in reading English
text. Though the learners use social media 3-4 hours per day, they usually avoid using English rather they chat in
Bangla using English alphabet which makes them devoid of learning English properly and effectively. So, to
solve this problem, the students should be motivated to use and utter English words as much as possible. They
need to pronounce the new words and learn the meaning of the words and use those words in daily
communication. The more they will utter the new English words, the more they will be habituated with those
words and feel comfortable in reading the unknown text.
Some recommendations are given below to meet the challenges of reading an English text:
 Focusing on English vocabulary building.
 Being aware of the correct English pronunciation.
 Encouraging the students to use English words.
 Following different strategies in English classrooms.
 Reading the text with pleasure and interest.
 Motivating the students to participate in reading willingly.
 Growing a habit of reading from early childhood.

-Alia Rawshan Banu

Sr. lecturer

Daffodil International College

Daffodil International College Blog(Afroza Sultana)

মাশরুম-ওষুধ, টনিক ও হালাল সবজি

মাশরুম-ওষুধ, টনিক ও হালাল সবজি
মাশরুম-ওষুধ, টনিক ও হালাল সবজি

মাশরুম অত্যন্ত সুস্বাদু, পুষ্টিকর এবং ঔষধি গুণসম্পন্ন সবজি, যা সম্পূর্ণ হালাল। মাশরুম Fungi রাজ্যের Eumycota বিভাগের Basidiomyoetes শ্রেণীর অন্তর্ভুক্ত পরজীবি ছত্রাক। অনেকের ধারণা ব্যাঙের ছাতাই মাশরুম। কিন্তু ব্যাঙের ছাতা এবং মাশরুম এক জিনিস নয়। ব্যাঙের ছাতা প্রাকৃতিকভাবে যত্রতত্র গজিয়ে ওঠা বিষাক্ত ছত্রাক। আর মাশরুম হলো গবেষণাগারে উদ্ভাবিত বিজ্ঞানসম্মত উপায়ে চাষ করা খাওয়ার উপযোগী ছত্রাক।

প্রকৃতিতে অসংখ্য মাশরুম রয়েছে। তার মধ্যে ২ হাজার মাশরুম ভক্ষণযোগ্য হলেও বিশ্বে মাত্র ২০ টি জাতের মাশরুম চাষ করা সম্ভব হয়েছে এবং কিছু কিছু বাণিজ্যিকভাবে চাষ হচ্ছে। বাংলাদেশের আবহাওয়ায় ঝিনুক, কান, বোতাম, ঋষি, খড় ও শিতাকে মাশরুম চাষ করা সম্ভব।

মাশরুমের স্পোর গজিয়ে যে হাইফা তৈরি হয় , সেই হাইফা সমষ্টি বা মাইসেলিয়াসকে “স্পন” বলা হয়। টিস্যু কালচারের মাধ্যমেও মাশরুমের কোষকলা থেকে স্পন উৎপাদন করা হয়। এই স্পনের মাধ্যমেই মাশরুমের চাষ করা হয়ে থাকে। মাশরুম চাষের জন্যে আবাদি জমি দরকার হয় না। অসবুজ হওয়ায় সূর্যালোকের প্রয়োজন হয় না বিধায় ঘরের মধ্যেই চাষ করা যায়। অপরদিকে বাংলাদেশের জলবায়ু, আবহাওয়া মাশরুম চাষের অত্যন্ত উপযোগী। মাশরুম চাষের প্রয়োজনীয় উপকরণ অত্যন্ত সস্তা এবং সহজলভ্য। তাই চাষিরা কম পুঁজি ও অল্প শ্রমে মাশরুম সেন্টার থেকে স্পনভর্তি সাবস্ট্রেটসহ পিপি ব্যাগ সংগ্রহ করে । যে কোন ছোট পরিসরে কাঠ বা বাঁশের তাকে সারিবদ্ধভাবে চাষ করে অল্প সময়ে(৭-১০ দিন) মাশরুম পেতে পারেন, যা বিশ্বের কোনো ফসলের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়। মাশরুম তাজা অবস্থায় পিপি ব্যাগে ভরে সিল করে ফ্রিজে রাখলে বেশ কয়েকদিন ভালো থাকে। তাছাড়া তিন চারদিন রোদে শুকিয়ে সংরক্ষণ করা যায় এবং শুকনো মাশরুম ছয় মাস পর্যন্ত ভালো থাকে।

মাশরুম-ওষুধ, টনিক ও হালাল সবজি-
মাশরুম-ওষুধ, টনিক ও হালাল সবজি-

প্রতি ১০০ গ্রাম শুকনো মাশরুমের পুষ্টিগুণ

প্রোটিন: ২৫-৩৫%, ফ্যাট: ৪-৬% ভিটামিন ও খনিজ: ৫৭-৬০%, কার্বোহাইড্রেট: ৫%-৬%। উন্নত বিশ্বে মাশরুম অত্যন্ত জনপ্রিয় খাবার। বর্তমানে বাংলাদেশে চায়নিজ রেস্টুরেন্ট ও বড় বড় হোটেল এবং ব্যক্তিগত বা পারিবারিক পছন্দের কারণে সবজি হিসেবে মাশরুম খাওয়ার প্রচলন শুরু হয়েছে। মাশরুমের মুখরোচক স্বাদের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে প্রাচীনকাল থেকেই উন্নত বিশ্বের মানুষ খাদ্য তালিকায় মাশরুমকে অগ্রাধিকার দিয়ে আসছে। এমনকি রাষ্ট্রীয় অতিথিদের আপ্যায়নে ব্যবহৃত হতো অসাধারণ লোভনীয় স্বাদের মাশরুম। বিশ্বব্যাপী ভোজন রসিকরা মাশরুমের স্বাদকে তুলনা করেন মাংসের সাথে। আর সে কারণে মাশরুমকে বলা হয় সবজি মাংস।

মাশরুম এমন একটি সবজি যা বিচিত্রভাবে আমাদের দেশীয় পদ্ধতিতে মাংস, ছোট-বড় যে কোনো মাছ, সবজি প্রভৃতি যে কোনো আইটেমের খাবারের সঙ্গে মিশিয়ে রান্না করলে খাবারের স্বাদ বহুগুণে বৃদ্ধি পায়। শুধু তাই-ই নয়, বিভিন্ন ধরনের ফাস্টফুডে (বার্গার, স্যান্ডউইচ, শিঙ্গাড়া, নুডুলস, ফ্রাই) মাশরুম ব্যবহার করে জনপ্রিয় সুস্বাদু খাবার তৈরি করা যায়।

বিদেশে মাশরুম ‘ওষুধ, টনিক ও খাদ্য’ একের ভেতরে তিন হিসেবে পরিচিত।

তাই,

‘রোগমুক্ত স্বাস্থ্য চান

নিয়মিত মাশরুম খান’

কারণ

মাশরুম শরীরের জমাকৃত কোলেস্টেরল মুক্ত করে। এতে রয়েছে কোলেস্টেরল কমানোর অন্যতম উপাদান ইরিটাডেনিন, নোভাস্টানিন এবং এনটাডেনিন।

মাশরুমে যথেষ্ট পরিমাণ আঁশ থাকায় শরীর স্লীম রাখে। কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে।

কমচর্বি। কোলেস্টেরলমুক্ত এবং লিনোলেয়িক এসিডসমৃদ্ধ হওয়ায় মাশরুম হৃদরোগীদের জন্যেও অত্যন্ত উপকারী খাবার।

মাশরুম এমন একটি ঔষধি গুণসম্পন্ন সবজি এবং টনিক যা দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। ডায়াবেটিক, উচ্চরক্ত চাপ, হৃদরোগ, ক্যান্সার ও টিউমার, হেপাটাইটিস-বি, জন্ডিস, এইডস, প্রভৃতি দুরারোগ্য ব্যাধির প্রতিরোধক।

শুধু তাই নয়, নিয়মিত মাশরুম খেলে শারীরিক ও মানসিক শক্তি বৃদ্ধি পায়। মেরুদণ্ড দৃঢ় হয়, ব্রেইন সুস্থ থাকে, এমনকি চুল পড়া ও চুল পাকা বন্ধ করে। বাংলাদেশের আবহাওয়ায় মাশরুম একটি অত্যন্ত সম্ভাবনাময় ফসল। শুধু তাই নয়, মাশরুম চাষের মাধ্যমে এ দেশের পুষ্টি উন্নয়ন, দারিদ্র্য বিমোচন, কর্মসংস্থান সৃষ্টি, এমনকি বিশ্বব্যাপী এর চাহিদা বৃদ্ধি পেয়েছে। এগুলো বিদেশে রপ্তানি করে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের মাধ্যমে যে কেউ অল্প পুঁজি ও অল্প পরিশ্রমে নিজের ভাগ্যের পরিবর্তন ঘটাতে পারেন। নিয়মিত মাশরুম খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলে নিজেকে রাখতে পারেন রোগমুক্ত ও সুস্থ সবল।

-আফরোজা সুলতানা

সিনিয়র প্রভাষক, জীববিজ্ঞান।

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল কলেজ

Daffodil International College Blog(Nilufa Yeasmin)

সন্তানের লিঙ্গ নির্ধারণে কার ভূমিকা সবচেয়ে বেশি? বাবা না মা !

আমাদের সমাজসংসারে প্রচলিত আছে, সন্তান ছেলে বা মেয়ে হবার জন্য দায়ী মা। এই প্রচলিত কথাটা মোটেই সত্য নয়। আসল সত্য টা না জানায় অনেক মাকে সংসার ত্যাগ করতে হয়,মানসিক যন্ত্রণা ভোগ করতে হয়, এমন কি অনেক মাকে এই পৃথিবী ছেড়ে চলে যেতে হয়। অথচআসল সত্য টা হলো যে, সন্তান ছেলে বা মেয়ে হবার জন্য দায়ী বাবা, মা নয়। আমাদের বাংলাদেশ তথ্য প্রযুক্তির ক্ষেত্রে অনেক দূর এগিয়ে গেছে, তাই এই কথাটা যদি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, গণমাধ্যম এবং দৈনিক পত্রিকায় বেশি বেশি সরকারীভাবে প্রচার করা হয়, তাহলে আমাদের মায়েরা এই নির্মম অসত্য থেকে মুক্তি পাবে।

সন্তান ছেলে হবার জন্য যে বাবা দায়ী এই নির্মম সত্যির আমি বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা দিচ্ছি- 

মানুষের প্রতিকোষে ২৩ জোড়া ক্রোমোজোম রয়েছে, এর মধ্যে ২২ জোড়া নারী ও পুরুষ উভয় সদস্যে একই রকম, সেগুলোকে বলা হয় অটোজোম। ১ জোড়া ক্রোমোজোম নারী ও পুরুষ সদস্যে আলাদা, এদেরকে বলা হয় সেক্স ক্রোমোজোম। নারীসদস্যে যেসব গ্যামেট তৈরি হয় তাতে শুধু X ক্রোমোজোম থাকে, এ কারণে নারীকে হোমোগ্যামেটিক (XX) বলে। পুরুষ সদস্যে দু ধরনের গ্যামেট তৈরি হয়, এক ধরনের গ্যামেটে থাকে X ক্রোমোজোম এবং অন্য  গ্যামেটে  থাকে Y ক্রোমোজোম, পুরুষকে তাই হেটারোগ্যামেটিক (XY) বলে। স্ত্রী শুধুমাত্র এক ধরনের ডিম্বাণু (X) উৎপন্ন করে। কিন্তু পুরুষ ২ ধরনের শুক্রাণু (X এবং Y) উৎপন্ন করে। যখন X বাহী ডিম্বাণুর সাথে X বাহী শুক্রাণুর মিলন হবে, তখন সন্তান হবে কন্যা (XX) এবং যখন X ডিম্বানুর সাথে Y বাহী শুক্রাণুর মিলন হবে, তখন সন্তান হবে ছেলে (XY)।

এই ব্যাখ্যা থেকে আমরা আরও স্বচ্ছ ধারণা নিলাম যে, সন্তানের লিঙ্গ নির্ধারণে দায়ী বাবা।

-নিলুফা ইয়াসমিন

সিনিয়র প্রভাষক, জীববিজ্ঞান।

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল কলেজ

লালসালু: একটি মাজারের কাহিনী:Daffodil International College Blog(Mominul Huq)

লালসালু: একটি মাজারের কাহিনী

পল্লিকবি জসীমউদ্‌দীনের (১৯০৩ – ১৯৭৬) ‘কবর’ কবিতাটি ‘রাখালী’ (১৯২৭) কাব্যগ্রন্থের অন্তর্গত। এটি গল্পনির্ভর একটি করুণ রসাত্মক কবিতা। কবিতার শ্রেণি-বিচারে এটি শোক কবিতা (Elegy)। মুনীর চৌধুরীর (১৯২৫ – ১৯৭১) ‘কবর’ (রচনাকাল ১৯৫৩) একাঙ্কিকা। এটি ১৯৫২-র ভাষা সংগ্রামের আবহে রচিত। তৃতীয়টি সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ্ এর (১৯২২ – ১৯৭১) উপন্যাস ‘লালসালু’ (১৯৪৮)। এরও বিষয়বস্তু একটি কবর বা মাজার।
‘লালসালু’তে বর্ণিত মহব্বতনগর শস্য সমৃদ্ধ প্রত্যন্ত একটি গ্রাম। গ্রামটিতে ধর্মীয় ও আধুনিক শিক্ষার আলো পৌঁছেনি। মজিদ মৌলবি হঠাৎ একদিন ওই গ্রামে এসে নাটকীয়ভাবে একটি মাজার প্রতিষ্ঠা করল। এরপর সে গ্রামীণ জীবনের মঞ্চে একজন ধর্মীয় নেতা তথা দক্ষ অভিনেতারূপে আবির্ভূত হলো। সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ্ নির্মোহ ও নিরপেক্ষ দৃষ্টিকোণ থেকে বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করেছেন। মজিদ মৌলবির গতিবিধি, গোপন অভিপ্রায় ও কার্যকলাপ তাকে আর দশজন গ্রামবাসী থেকে স্বতন্ত্র ও বিশিষ্ট করে তুলেছে। লেখকের মতে – ‘মাজারটি তার শক্তির মূল।’ অর্থাৎ সে ‘মাজারের মুখপাত্র’ বা খাদেম। মাজারটিকে কেন্দ্র করেই তার উত্থান ও শ্রীবৃদ্ধি। নইলে মহব্বতনগর গ্রামে সে একজন দরিদ্র ও ছিন্নমূল বহিরাগত (Outsider) মাত্র।
‘কবর’ ও ‘মাজার’ আরবি শব্দ, কিন্তু দুয়ের মাজেজা আলাদা। কবর সাধারণ সমাধি- যার বিশেষ যত্ন হয় না। কিন্তু মাজার হচ্ছে পির-দরবেশের সমাধি- যার অসংখ্য ভক্ত-অনুরাগী থাকে। মাজার পবিত্র ও বিশেষ মর্যাদাপূর্ণ স্থান। সেহেতু প্রচলিত রীতি অনুযায়ী মাজার লালসালুতে ঢাকা থাকে। আলোচ্য বইটিতে কখনো ‘কবর’ (কার কবর এটা?), কখনো ‘মাজার’ (মাছের পিঠের মতো মাজার) শব্দটি ব্যবহৃত হয়েছে। আমাদের ধারণা, এর মধ্যে একটা বৈপরীত্য (Paradox) আছে। এখানে উল্লেখযোগ্য যে, বাংলাদেশের গ্রাম ও শহরে অসংখ্য মাজার দেখা যায়। কিন্তু সে-সব মাজারে কি ধর্মীয় পবিত্রতা রক্ষিত হয়? সে-সবের কয়টি আসল এবং কয়টি নকল মাজার?
‘লালসালু’তে মজিদ মৌলবির মুখে গ্রামবাসী যে স্বপ্নবৃত্তান্ত (মাজার প্রতিষ্ঠার গল্প) শুনেছে, তা আষাঢ়ে গল্পমাত্র। যে পির আসলে মরেনি, কবরে জেন্দা আছে- সে হচ্ছে ‘মোদাচ্ছের’ পির। গ্রামবাসী যে মোদাচ্ছের (জীবিত) পিরের মাজারে এসে যাবতীয় বালা-মুসিবত থেকে মুক্তি কামনা করেছে, তা শিরক্। ইসলাম ধর্মমতে, মুফতি ফতোয়া দেওয়ার যোগ্য। কিন্তু মজিদ মৌলবি (মক্তবের মৌলবি) যে ফতোয়াবাজি করেছে, তা সম্পূর্ণরূপে বেদাত। স্ত্রীলোকের সন্তান হওয়া না-হওয়া সম্পর্কে মজিদ মৌলবি যে ব্যাখ্যা দিয়েছে, তা ধর্মবিরোধী। ইসলাম ধর্মমতে, জেকের এক প্রকার এবাদত। কিন্তু মজিদ মৌলবি মাজার প্রাঙ্গণে ভক্ত-মুরিদ সহ যে জেকের অনুষ্ঠান করেছে, তা সম্পূর্ণরূপে বেদাত। মূলকথা হচ্ছে মজিদ মৌলবির কাছে ধর্ম স্বার্থসিদ্ধির একটা মোক্ষম অস্ত্র। ধর্মীয় দৃষ্টিতে সে পথভ্রষ্ট ও মোনাফেক। সে ইসলাম ধর্মের অপব্যাখ্যা দিয়েছে। সে মিথ্যাচার ও প্রতারণার সঙ্গে জড়িত। তার ঈমান-আকিদা খুবই দুর্বল। কিন্তু সরল ও ধর্মভীরু গ্রামবাসী তাকে ধোঁকাবাজ ভাবেনি বা তাকে সন্দেহ ও অবিশ্বাস করেনি।

সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ্ কেন ‘লালসালু’ লিখেছেন? ইসলাম ধর্মমতে, কবর বা মাজার জেয়ারত করা সুন্নত, কিন্তু মাজারপূজা শিরক্ ও বেদাত। অর্থাৎ মাজারপূজা সম্পূর্ণরূপে নিষিদ্ধ। অথচ বিশ্বাসী ব্যক্তিমাত্রই জানেন, মাজার পবিত্র স্থান। এখানে স্মরণীয় যে, ১৯৪৭-এ পাকিস্তান রাষ্ট্রেটির সৃষ্টি। এর মাত্র এক বছর পর ‘লালসালু’ রচিত। পাকিস্তান যে ‘ফাঁকিস্তান – ধর্মীয় নিপীড়ন ও শোষণ-বঞ্চনার লীলাক্ষেত্র, আলোচ্য বইটিতে সে- ইঙ্গিতই করা হয়েছে। এ প্রসঙ্গে ‘অহিংসা’ (১৯৪১), ‘হুযুর কেবলা’ ও ‘দেবতার জন্ম’ রচনা-তিনটির কথা উল্লেখযোগ্য। প্রথমটি মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়ের (১৯০৮ – ১৯৫৬) লেখা উপন্যাস, দ্বিতীয়টি ও তৃতীয়টি যথাক্রমে আবুল মনসুর আহমদ (১৮৯৮ – ১৯৭৮) ও শিবরাম চক্রবর্তীর (১৯০৩ – ১৯৮০) লেখা ছোটগল্প। এগুলোতেও কপট ধর্মগুরুদের মুখোশ উন্মোচিত হয়েছে। 

বাংলাদেশের একটি চিহ্নিত গোষ্ঠি ‘লালসালু’কে ‘বিতর্কিত’ মনে করেন। তাদের মতে, বইটিতে ইসলাম ধর্মের অবমাননা করা হয়েছে। আমাদের ধারণা, অভিযোগটি ভিত্তিহীন। ‘লালসালু’তে মজিদ মৌলবি একজন কপট ধর্মগুরু, কিন্তু সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ্ গ্রামবাসীদের কাছে তাকে হেয় প্রতিপন্ন করেননি। তিনি পিরপ্রথা ও মাজারপ্রথার ত্রুটি ও অসঙ্গতিগুলো তুলে ধরেছেন। তিনি অন্ধ বিশ্বাসী নন, বরং একজন সত্যনিষ্ঠ ও মানবহিতৈষী লেখক। তবে কেউ চাইলে ‘লালসালু’তে কার্ল মার্কসের (১৮১৮ – ১৮৮৩) দূরবর্তী ছায়াও খুঁজে পাবেন।

-মমিনুল হক

সহকারি অধ্যাপক, বাংলা

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল কলেজ

Daffodil College Alumni Students(Anik Halder)

রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (রুয়েট) এ ইলেকট্রনিকস এন্ড টেলিকমউনিকেসন বিভাগে আমাদের অনিক হালদার

অনিক হালদার, ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল কলেজের ২০১৫-১৬ সেশনের বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী। সে ২০১৭ সালে এইচ.এস.সি পরীক্ষা দিয়ে পাশ করে। বর্তমানে রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (রুয়েট) এ ইলেকট্রনিকস এন্ড টেলিকমউনিকেসন (ETE) বিভাগে তৃতীয় বর্ষে অধ্যয়নরত আছে।
আমাদের গল্পের দশম পর্বে অনিক হালদার তার স্মৃতিচারণ করেছে এভাবেই –

স্কুলে থাকাকালীন সময়ই চিন্তা ছিলো ঢাকায় কোনো কলেজে ভর্তি হব। বড় ভাই ড্যাফোডিল কলেজে পড়াশোনা করায় ভর্তি হলাম ড্যাফোডিল কলেজেই। কলেজের সব শিক্ষকবৃন্দ প্রথম থেকেই ভালো করে চিনতো এবং সকলেই অনেক স্নেহ করতেন। কলেজের সকল শিক্ষকবৃন্দ খুবই আন্তরিক ছিলেন, সকলেই খুব যত্নসহকারে পড়াতেন। পড়াশোনার কোনো বিষয়ে সমস্যা থাকলে কলেজ ছুটির পরেও শিক্ষকদের কাছে গেলে তারা সময় নিয়ে বুঝিয়ে দিতেন ৷ কলেজে পড়াকালীন ইন্জিনিয়ারিং – এ পড়ার চিন্তা মাথায় ছিলো। সেই চিন্তা নিয়েই পড়াশোনা করে যাচ্ছিলাম। দেখতে দেখতে এইচ এস সি পরীক্ষা চলে আসলো। পরীক্ষা শেষ হওয়ার কয়েকদিন পর, ইন্জিনিয়ারিং ভর্তির প্রস্তুতি শুরু করলাম। প্রায় দুইমাস পর এইচ এস সি রেজাল্ট হলো; অল্পের জন্য এ+ পেলাম না তখন, ভাবলাম হয়তো আর ইন্জিনিয়ারিং পড়া হবেনা।

কয়েকদিন মন খারাপ ছিল কিন্তু এভাবে তো জীবন চলবে না; তাই ভালমত পড়াশোনা শুরু করলাম আর ভাবলাম, যেভাবেই হোক ভালো একটা ভার্সিটিতে চান্স পেতেই হবে। 

কিছুদিন পর সার্কুলারে দেখলাম বুয়েট ছাড়া বাকি সব ইন্জিনিয়ারিং ইউনিভার্সিটিগুলোতে পরীক্ষা দিতে পারবো। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা দিলাম, রেজাল্ট হলো কিন্তু পজিশন ভাল না। রাজশাহীতে গেলাম রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষা দিতে। রাতে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের হলে থাকলাম, সকালে উঠে পরীক্ষা দিলাম। তারপরদিন আরো একটা ইউনিট এ পরীক্ষা দিয়ে কলেজর বন্ধু কামরুল সহ আরো কয়েকজন চলে গেলাম পাবনার উদ্দেশ্য। পরদিন বিকেলে পরীক্ষা দেওয়ার পর সন্ধ্যার পরপর ঈশ্বরদী স্টেশনে চলে আসলাম ঢাকা আসবো বলে, ঐ দিন বাসের কোনো টিকিট ছিলোনা তাই ট্রেনই ছিলো একমাত্র ভরসা। স্টেশনে এসে কোনো টিকিট না পাওয়ায় রাতে স্ট্যান্ডিং টিকেট কাটলাম। সেই রাতটি ছিল আামার জীবনে স্মৃতিময় একটি রাত। স্টেশনে আসার পর দুই-তিন জনের সাথে পরিচয় হলো। ট্রেন আসার কথা রাত ১১ টায় হলেও ট্রেন আসলো রাত ১ টার পর। যাদের সাথে স্টেশনে পরিচয় হলো তাদের সাথে আমরা ট্রেনে উঠলাম। উঠার পর দেখলাম পুরো বগি ভরা এডমিশন ক্যান্ডিডেট।  একজন দুইজন করে ১০-১২ জনের একটা সার্কেল হয়ে গেলো।  পুরোরাত সকলে গল্প গুজব করে কাটিয়ে দিলাম। একদল অচেনা মানুষের সাথে এতো সুন্দর একটা রাত পার হবে সেটা কল্পনার বাইরে।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজাল্ট হলো সেখানে মেরিট লিস্টে নাম দেখে কিছুটা আশ্বস্ত হলাম তখনো রুয়েট এর পরীক্ষা হয়নি। কিছুদিন পর আবার রাজশাহীতে গেলাম রুয়েট এর ভর্তি পরীক্ষা দেওয়ার জন্য। পরীক্ষা দিয়ে মনে হলো হয়তো ভাল পজিশন আসবে। দুপুরেই বাসে উঠলাম সিলেটের উদ্দেশ্যে। দুপুর থেকে প্রায় ভোর পর্যন্ত বাসেই কাটে গেল। রুয়েট এর রেজাল্ট দিলো, মনের ভিতর কিছুটা সংশয় নিয়ে রেজাল্ট দেখতে ঢুকলাম। পজিশন দেখে মনে হলো হয়তো ইন্জিনিয়ারিংয়ে ভর্তি হতে পারব। সেই মুহূর্তের অনুভূতি বলে প্রকাশ করা যাবেনা। তার কয়েকদিন পর ভর্তির জন্য ডাক পড়ল। সব কাগজ এবং কিছু মেডিকেল রিপোর্ট নিয়ে ভর্তি হতে গেলাম। ভর্তির পর মনে হলো মাথা থেকে ভারী বোঝাটা নামল। ভর্তির পর বিকেলে একটা মেস ঠিক করে তার পরদিন ঢাকায় ফিরে আসলাম।

এক মাস পর থেকে ক্লাস শুরু হওয়ার ডেট পেলাম। এক মাস দেখতে দেখতে কেটে গেল। পরিবার থেকে অনেক দূরে যাচ্ছি এই নিয়ে মনে সংশয় ছিলো, কিভাবে সবার সাথে মানিয়ে উঠবো! এই সংশয় নিয়ে পরদিন সকালে রাজশাহীর উদ্দেশ্যে রওনা দিলাম। তারপরের দিন ওরিয়েন্টেশন ক্লাসের জন্য ক্যাম্পাসে চলে গেলাম। সেখানে আমার নিজের ডিপার্টমেন্টের কয়েকজনের সাথে পরিচয় হল। পরদিন সকালে ক্লাসের উদ্দেশ্যে রওনা দিলাম। প্রথম ক্লাসে সব শিক্ষক আমাদের সবার পরিচয় নিল এবং বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কে অনেক ধারণা এবং কিছু উপদেশ দিলেন। নতুন জায়গা, নতুন মানুষ, সবার সাথে মানিয়ে চলা শুরু করলাম। নতুন শহরে ঘুরাঘুরি এবং সবার সাথে আড্ডা দিতে দিতে দিন কাটতে লাগল। দেখতে দেখতেই পায় প্রথম সেমিস্টার এক্সাম চলে আসলো। প্রথম সেমিস্টারের ফিজিক্স ল্যাব পরীক্ষা নিয়ে বেশ ভয়ে ছিলাম। বোর্ড ভাইভা ছিল নতুন আরেক অভিজ্ঞতা। আস্তে আস্তে সবকিছুতে মানিয়ে উঠলাম। প্রায় দেড় বছর পর একটা টিউশন ম্যানেজ করলাম। এভাবেই  চলতে থাকলো জীবন। ভবিষ্যতে বিদেশে গিয়ে পড়াশোনার ইচ্ছে আছে। সকলে দোয়া করবেন যাতে, আমি আমার লক্ষ্যে পৌছাতে পারি।

Daffodil College Alumni Students(Fazlay Rabbi Shuvo)

সুদূর চীনের Yunnan University তে Software Engineering এর স্বপ্ন পূরণের পথে আমাদের শুভ

ফজলে রাব্বি শুভ ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল কলেজের ২০১৬ – ২০১৭ সেশনের একজন ছাত্র। বর্তমানে  চীনের একটি পাবলিক ইউনিভার্সিটি তে ( Yunnan University, Kunming, China ) সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং- এ লেখাপড়া করছে।

২০১৮ সালে এইচএসসি পাশ করার পরে, বাংলাদেশ থেকে চীনে পৌঁছানোর গল্পটা শুভর মুখ থেকেই শোনা যাক্:

‘আমার মতে, বর্তমান কে মনে করে অতীত কে ভুলে যাওয়া মোটেও উচিত না। DIC-

তে আমার কাটানো সময় টা শুধু ২ বছর হলেও এটা ছিলো আমার দ্বিতীয় হোম।’ শুভর কলেজ লাইফটা ছিলো একটু অন্যরকম।

সে বলেছে ‘রোজ সকালে সবার আগে এখানে আসাটা প্রায় আমার একটা অভ্যাসে পরিণত হয়েছিল। যখন কলেজের গেইটও খুলতো না; আমি শুভ হাজির হয়ে যেতাম আমার প্রিয় প্রাঙ্গণে। সেই ভোর ৬ টায় এসে ক্লাস শেষ করে, বাসায় যেতাম সন্ধ্যা ৬ টায়। দিনের বেশিরভাগ সময় এখানে কাটত আমার,ঠিক আমার বাসার মতো।‘

এছাড়াও এখানকার স্যার, ম্যাডামরা ফ্যামিলি মেম্বার থেকে কোনো অংশে কম ছিলেন না। কোন কোন শিক্ষককে দেখে ভয় পেতাম; পরীক্ষার খাতায় উত্তর লিখতে ভুল করলে বকাঝকা যেমন খেয়েছি, সঠিক লিখার জন্য প্রশংসাও পেয়েছি। শিক্ষাগুরু তো এমনই হয়।’

শুভর বিদেশে পড়তে যাওয়ার পেছনে নিজের ইচ্ছা, বাবা-মাযের উৎসাহের পাশাপাশি শিক্ষকবৃন্দের সহযোগিতার কথাও সে ভুলে যায়নি। এই প্রসঙ্গে শুভ বলে:

‘তাদের সাথে সব ধরণের সমস্যার কথাই প্রকাশ করা যেত, হোক লেখাপড়ার বিষয়, কিংবা  ফিনান্সিয়াল কোনো ব্যাপারে,আবার হয়তো পার্সোনাল লাইফ এর কোনো ব্যাপারে। উনারা সব সময় আমাদের কে ঠিক পরামর্শ টা দিতেন । তাদের সঠিক পরামর্শ এবং তাদের এত ফ্যামিলিয়ার একটা পরিবেশ পেয়েই আমার আজ এত ভালো একটা ভার্সিটি তে এত ভালো একটা সাবজেক্ট এ পড়ালেখা করার সুযোগ হয়েছে।।

চায়না যাওয়ার গল্পটা ছিল এরকম-

‘চায়নাতে যাওয়ার আগে অনেক বাঁধাই সামনে এসেছিল তার মধ্যে একটা ছিল ভিসার জন্য এম্ব্যাসিতে দাঁড়ানো।  এম্ব্যাসি সকালবেলা খুললেও ভিসার জন্য বাইরে লাইন লেগে থাকত রাত থেকেই। কারণ,  চায়নাতে ভার্সিটিতে ভর্তি হওয়ার জন্য সেশন থাকে শুধু মাত্র দুইটা মার্চ  এবং সেপ্টেম্বরে, এজন্য এই  সময় অনেক ভিড় থাকে | আমার মনে আছে,  রাত বারোটা থেকে লাইনে দাঁড়িয়ে  সকাল ১১ টার সময় ভিসার জন্য এ্যাম্বাসিতে ঢুকতে পেরেছিলাম। চায়নাতে যেয়ে লেখাপড়া করতে পারব বলে আমার কাছে এসব বাধাকে  কিছুই মনে হলো না।’

‘আমার ভার্সিটি Yunnan  প্রভিন্স এ; এটাকে বলা হয় সিটি অফ ফ্লাওয়ার ( City of Flower)

কারণ, এই জায়গাটা চায়নার অন্য জায়গার তুলনায় অনেক সুন্দর । এছাড়া এখানকার আবহাওয়াটা না ঠান্ডা না গরম , অর্থাৎ নাতিশীতোষ্ণ, বাংলাদেশের মতো। এজন্য এখানে থাকতে আমাদের তেমন কোন সমস্যা হয় না ।’

এটা খুবই ইতিবাচক একটা দিক এবং ইউনিয়ন প্রভিন্স এর মধ্যে বেস্ট ভার্সিটি হলো Yunnan University. এখানে চান্স পাওয়াটা আসলে এক ধরনের ভাগ্যের ব্যাপার । তার উপরে সাবজেক্ট হলো সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং যা কম্পিউটার সাইন্স থেকে অনেকটা আলাদা এবং তুলনামূলক নতুন |

ভার্সিটি লাইফ নিয়ে  শুভ যেমনটা বলেছে:

‘চায়নাতে ভার্সিটি জীবনটা মোটামুটি ঝামেলা মুক্তভাবে কেটে যায় রোজ । দিনে ২ থেকে ৩ ঘন্টা ক্লাস থাকে বাকি সময়টা আমরা বিভিন্ন কাজে ব্যয় করি ।

সেটা হতে পারে লাইব্রেরীতে যেয়ে লেখাপড়া করে অথবা নতুন কোথাও ঘুরতে যাওয় কিংবা গ্রাউন্ডে যেয়ে ফুটবল খেলা। আমি প্রতি সপ্তাহে আশেপাশে বিভিন্ন ইউনিভার্সিটিগুলোতে যেতাম আমার ফ্রেন্ডের সাথে ইংলিশ কর্নার গুলোতে। এটা অনেকটা ইংলিশ ক্লাব এর মত,

এখানে সবাই তাদের ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজ এবং স্পিকিং টা প্র্যাকটিস করতে পারে একে অপরের সাথে  । এখানে খুব ভালো একটা সামাজিকতার আদান-প্রদান হয়। সফটওয়্যার ডিপার্টমেন্টের অন্যতম ক্লাস মনিটর হওয়ার সাপেক্ষে অন্য ইউনিভার্সিটি তে যেয়ে আমার ইউনিভার্সিটি কে রিপ্রেজেন্ট করতে আমার ভালোই লাগে।

শুভর ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কী?

‘চায়নাতে আসার আমার মূল উদ্দেশ্য হলো লেখাপড়া করে একটা বিজনেস ক্যারিয়ার সেট করা । চায়না বাণিজ্যের দিক থেকে সেরা এবং এরা  প্রযুক্তির দিক দিয়ে অনেক এগিয়ে। এমনকি এরা কেউ কখনই পেমেন্ট করার জন্য ক্যাশ রাখে না তাদের  যা দেখে আমি প্রথমে অবাক হই ।সবই হয় মোবাইল এবং সফটওয়্যার এর মাধ্যমে মোবাইল ছাড়া এরা প্রায় কোন কাজই করেনা।  তাই আমার মতে, এ সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং এ লেখাপড়া করে এবং এটা নিয়ে বিজনেস করতে হলে চায়না সবথেকে উত্তম জায়গা | এখানে আমি হাতে কলমে বিজনেস শেখার সুযোগ  পাচ্ছি এবং পাশাপাশি সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং এ লেখাপড়া তেও এগিয়ে যাচ্ছি।