Blog Template

আত্মবিশ্বাস- ই সফলতার মূলমন্ত্র

একাদশ দ্বাদশ শ্রেণীর গণ্ডি পেরিয়েই তোমরা এক বিশাল যুদ্ধের সম্মুখীন হবে। সেই যুদ্ধটি হল ভার্সিটি এডমিশন যুদ্ধ। পাবলিক ইউনিভার্সিটিতে পড়ার সুযোগ পাওয়ার জন্য একটি আসনের পেছনে যুদ্ধ করে অনেক শিক্ষার্থী। কিন্ত কেন ? ভালো ইউনিভার্সিটিতে একটি ভালো সাবজেক্টে পড়ার সুযোগ তোমার ক্যারিয়ার ও চিন্তা ভাবনা অনেকটাই বদলে দিবে।

 একটি ইট কখনো দূর থেকে চোখে পড়েনা, একটি একটি করে জোড়া লাগিয়ে বিল্ডিং বানালেই কেবল দূর থেকে সবার চোখে পড়ে মানুষের সফলতা হল একটি বিল্ডিং যা আস্তে আস্তে বানানোর পরই চোখে পড়ে । একাদশ দ্বাদশ শ্রেনীর দুই বছর কতটা তুমি ইফোর্ট দিয়ে পড়াশোনা করেছো তার উপর নির্ভর করবে তোমার এডমিশন যুদ্ধে জয়ী হওয়া না হওয়া। টোটাল ২০০ মার্কসের মান বন্টন। তার মধ্যে ১০০ মার্কস তোমার SSCHSC জিপিএ থেকে কাউন্ট করা হবে। ৪০% তোমার SSC ও ৬০% HSC রেজাল্ট থেকে নেয়া হবে।

আর বাকি ১০০ মার্কসের পরীক্ষা হবে তোমার HSC সিলেবাস থেকে। তাই সময় নষ্ট না করে তোমার প্রতিটি দিন কাজে লাগাও। আরাম আয়েশ আর অর্জন কখনোই এক পথে চলে না। অলসতা কখনো সফলতার বন্ধু হতে পারে না। সফলতার চারা গাছ দেখতে হলে অবশ্যই তোমাকে চেষ্টার বীজ বুনতে হবে। মনে রেখো ট্যালেন্ট বা যোগ্যতা দিয়ে বিচার করা হয় না, বিচার করা হয় অর্জন দিয়ে। কারন অর্জনই গর্জন। মাথা উঁচু করে বাঁচতে হলে তোমাকে অর্জনের প্রসেসে ঢুকতে হবে। সাকসেস হতে হলে চেষ্টা না করে মোবাইল নামক ঢিলামির বাক্সে বন্দী থাকা যাবে না। জীবনে সাকসেস হওয়ার কোনো লিফট নেই, দুনিয়াতে কেউ শর্টকাটে সফল হতে পারে না। নিজের উপর জোর করে হলেও প্রতিদিনের পড়া প্রতিদিন কমপ্লিট করতে হবে। একাদশ-দ্বাদশ শ্রেনীর ২ বছরের ক্যালেন্ডারের পাতা শেষ হয়ে গেলে পাওয়া না পাওয়ার হিসেব চূড়ান্ত হয়ে যাবে। এই দুই বছর বেশি উপভোগ করতে গিয়ে বেশি অনুশোচনায় ভুগতে যেনো না হয় সেই দিকটাও লক্ষ্য রাখতে হবে।

আজ না কাল পড়তে বসবো, আমার তো ভালো করে পড়া উচিৎ এই একই চিন্তা সবার মনেই আসে, পাথর্ক্য শুধু ঝাপিয়ে পড়ার মাঝে। বেশির ভাগ মানুষ সফল হতে পারে না কারন তারা যাত্রাই শুরু করে না। তাই তোমাদের বলি, দেরি না করে পড়তে বসো, প্রতিটা মূহুর্ত কাজে লাগাও।

সময় নষ্টকারী  অভ্যাসগুলো পরিবর্তন করতে হবে, সময় নষ্ট করার অপশন যত বাড়বে প্রোকাস্টিনেশনও তত বড়বে। হাতের মোবাইলটি ৩ ঘন্টা দূরে রেখে পড়তে বসলে কোনো ক্ষতি হবে না। কয়েক ঘন্টা তোমার হাতে মোবাইল না থাকলে দুনিয়া পাল্টে যাবে না। পড়াশোনার চেয়ে তোমার  মোবাইল জরুরি না। মনে রেখ মোবাইল এখন আমাদের অজান্তেই এক মহা আসক্তিতে পরিনত হয়েছে। মোবাইলের অতিরিক্ত ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ করতে পারলেই তুমি তোমার লক্ষ্যের পেছনে ক্লান্তিহীনভাবে লেগে থাকতে পারবে।

তোমরা কি জানো গুগলের বর্তমান CEO কে ??

তিনি হলেন- সুন্দর পিচাই

তিনি ভারতের তামিলনাড়ুর এক মধ্যবিত্ত পরিবারে বেড়ে ওঠেন। দুই রুমের একটি এপার্টমেন্টে ছোট ভাই সহ চার জনের পরিবার বাস করত। একটি ল্যাপটপ এমনকি একটি মোবাইল কেনার সামর্থ  ছিলনা।

স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে মেধাবৃত্তিতে সুযোগ পাওয়ার পর যুক্তরাষ্ট্রে যাবার জন্য প্লেনের টিকিট কেনার সামর্থ্যও পরিবারের ছিল না।  পরিবারের সঞ্চিত অর্থ আর এক বছরের মোট আয়ের চেয়েও বেশি পরিমান অর্থ লোন নিয়ে সেই ব্যবস্থা করেন তার বাবা-মা।

তার বর্তমান বেতন ভারতীয় মুদ্রায় ১৮৮৪ কোটি ৩৯ লাখ ১৩ হাজার ৯০০ টাকা। কঠোর পরিশ্রম করলে কোনো কিছুই অসম্ভব নয়।

যার প্রয়োজনের আকাঙ্খা যত বেশি তার আলসেমি আর এক্সকিউজ ততই কম।নদীর স্রোত কাউকে পাহাড়ের চূড়ায় উঠায় না বরং সাগরে নিয়ে ভাসায়। সাকসেস হতে হলে নিজেকে কন্ট্রোল করতে হবে। আনন্দ আর ইফোর্টের মধ্যে ব্যালেন্স রেখে পড়াশোনা করতে হবে।

মনে রেখো; মেধাবীরা হেরে যেতে পারে কিন্তু পরিশ্রমীরা কখনোই হারে না। সঠিক পথে পরিশ্রম করো, সফলতা আসবেই ইনশাআল্লাহ।

410031048_758419616331239_608964711440526813_n

মহান বিজয় দিবস ২০২৩

মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল কলেজে আয়োজিত হলো বিশেষ আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান। উৎসবমুখর এই দিনে কলেজ প্রাঙ্গণে শিক্ষকমণ্ডলী ও ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে উদযাপন করা হয় এই অনুষ্ঠান।

উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল কলেজের অধ্যক্ষ জনাব কর্নেল মো সাদীকুল বারী, শিক্ষ্কমণ্ডলী, ছাত্রছাত্রীবৃন্দ ও কর্মকর্তাবৃন্দ।

409931859_757272809779253_5382003419250202003_n

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস ২০২৩

বুদ্ধিজীবীরা ছিলেন বাংলাদেশের অন্যতম শ্রেষ্ঠ সন্তান। স্বাধীন বাংলাদেশে তাদের অবদান কখনো ভুলবার নয়। ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল কলেজ পরিবারের পক্ষ থেকে সকল শহীদ বুদ্ধিজীবীদের প্রতি রইলো বিনম্র শ্রদ্ধা। শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষ্যে ছাত্র ছাত্রীদের সমবেত প্রচেষ্টায় তৈরি দেয়ালিকা উদ্বোধন করেন ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল কলেজের অধ্যক্ষ জনাব কর্নেল মো সাদীকুল বারী।

397843272_738755944964273_2583593211645203703_n

Parents’ Meeting 2022-23

Parents’ Meeting Highlights for the 2022-23 Session at Daffodil International College!

We had an insightful and inspiring parents’ meeting today, where Principal Col Mohammad Sadikul Bari, psc (retd), graced us with his valuable words of wisdom for our students and their guardians.

Principal sir’s speech was a symbol of motivation, setting the tone for a successful year ahead. He emphasized the importance of education, character building, and the role parents play in shaping the future of our students.

rsz_img_20231025_124605

নবীনবরণ ২০২৩

“ফাগুনের নবীন আনন্দে গান খানি গাঁথিলাম ছন্দে; দিল তারে বনবীথি কোকিলের কলগীতি, ভরি দিল বকুলের গন্ধে।”

নানা উৎসাহ এবং উদ্দীপনার সাথে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল কলেজের একাদশ এবং দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে উদযাপিত হলো ২০২৩-২৪ শিক্ষাবর্ষে ভর্তিকৃত শিক্ষার্থীদের নবীনবরণ উৎসব। উৎসবে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল কলেজের অধ্যক্ষ জনাব শিবলী সাদিকের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনাব এস.এ.এম রফিকুন্নবী,অ্যাডিশনাল ডিরেক্টর জেনারেল, ডিরেক্টরেট অফ আইসিটি। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ড. সাখাওয়াত হোসেন, অধ্যক্ষ, ডিআইআইটি। সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ড. মুহাম্মদ মাহমুদুল হাসান, অধ্যক্ষ ডিআইএস। আলোচনা সভার পর শিক্ষার্থীদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়।

Blog-Template-5

“কিভাবে বাড়াবো যোগাযোগ-দক্ষতা”

চাকরিদাতা, সফল উদ্যোক্তা পেশা পরামর্শকদের কথায় ইদানীং বারবার ঘুরেফিরে আসে ‘কমিউনিকেশন স্কিল’ বা ‘যোগাযোগ–দক্ষতা’র কথা। যে পেশাই আমরা বেছে নেন না কেন, এ বিষয়ে দক্ষ আমাদের হতেই হবে। তাই এ জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত সময় হলো আমাদের ছাত্রজীবন। কিভাবে আমরা কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় যোগাযোগের ক্ষেত্রে আরও দক্ষ হয়ে উঠতে পারি, সে ধারাবাহিক কিছু কথা।

বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে ধারণা রাখুনঃ- কেউ ভালো লেখেন, কেউ ভালো বলেন, কেউ ভালো শ্রোতা, কেউবা দারুণভাবে নিজেকে উপস্থাপন করতে জানেন (প্রেজেন্টেশন দেন)। যোগাযোগ–দক্ষতা বিকাশের জন্য সব রকমের যোগাযোগেই নিজেকে সাবলীল ও দক্ষ করে তুলতে হবে। এ ক্ষেত্রে বাংলা ও ইংরেজিতে সাবলীলভাবে বলা ও লেখা যেমন গুরুত্বপূর্ণ, তেমনি কোনো কিছু বুঝে পড়া এবং মন দিয়ে শোনাও খুব জরুরি। আপনি যা বলছেন, তা আরেকজন বুঝতে পারছে কি না, কিংবা আপনি অন্যের কথা বুঝতে পারছেন কি না—দুটিই যোগাযোগ–দক্ষতার ওপর নির্ভর করে।

অনেক পড়তে হবেঃ- আমরা খুব সরলভাবে বলে পারি, যাঁরা অনেক পড়েন, তাঁরা অনেক বিষয় সম্পর্কে খোঁজ রাখেন। কাগুজে বই-সাময়িকী-সংবাদপত্র হোক, কিংবা ইন্টারনেটে ই-পত্রিকা, ই-সাময়িকী বা পেশা- বিজ্ঞান – ব্যবসাবিষয়ক কোনো পোর্টালই হোক না কেন, নিয়মিত চোখ রাখলে সাম্প্রতিক সব বিষয় সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যায়। “যোগাযোগ–দক্ষতা বিকাশের জন্য যখনই কোনো লেখা পড়ছেন, মাথায় ‘ফাইভ ডব্লিউ-এইচ’ নামের সূত্রটি গেঁথে নিতে হবে। ফাইভ ডব্লিউ-এইচ হলো হু, হোয়াট, হোয়্যার, হোয়েন, হোয়াই ও হাউ”। লেখাটি লেখক কেন লিখেছেন, কার জন্য লিখেছেন, কোন পরিপ্রেক্ষিতে লিখেছেন, কী কী বিষয় তুলে ধরা হয়েছে, কোন কোন বিষয় যুক্ত করা যেতে পারে, আপনি লিখলে কীভাবে লিখতেন—এসব মাথায় দ্রুত এঁকে ফেলতে হবে। যত বেশি পড়বেন, যত জানবেন, কথা বলার সময় আপনি তত আত্মবিশ্বাস পাবেন। জানার ঘাটতি থাকলে বুঝিয়ে বলা ও শুনে বোঝা—দুটি কাজই কঠিন হয়ে যায়।

অনুসরণ করতে হবেঃ যোগাযোগ–দক্ষতা বিকাশের জন্য বক্তৃতা (পাবলিক স্পিকিং) বা নিজের ভাবনা উপস্থাপন করার (প্রেজেন্টেশন) কৌশল জানতে হবে। আপনি নিজেকে দক্ষ করে তুলতে চাইলে যেকোনো বিখ্যাত ব্যক্তির কৌশলগুলো সহজে অনুসরণ করতে পারেন। ইউটিউবে পৃথিবীখ্যাত ব্যবসায়ী, উদ্যোক্তাসহ বিভিন্ন স্পিকারের বক্তব্য দেওয়ার কৌশল নিয়ে অনেক ভিডিও দেখতে পাবেন। এ ছাড়া পড়তে পারেন ক্রিস অ্যান্ডারসনের লেখা টেড টক: দ্য অফিশিয়াল টেড গাইড টু পাবলিক স্পিকিং। এছাড়াও আমাদের দেশে এখন অনেক প্রতিষ্ঠান এবিষয়ে বিভিন্ন ধরনের কোর্স চালু করেছে। তাই চাইলে সেখানে আপনি আপনার দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য কোর্স গুলো করতে পারেন। তবে অবশ্যই কোর্স করার পূর্বে কোর্স প্রদান কারী প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে ভালোকরে খোঁজ নিবেন। এটি বাংলা প্রবাদ প্রচলিত আছে, “চকচক করলেই সোনা হয় না”

লেখা: মহিউদ্দিন সুমন

প্রভাষক, উৎপাদন ব্যবস্থাপনা ও বিপণন
ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল কলেজ, ঢাকা

National Mourning Day Notice

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল কলেজ
বিজ্ঞপ্তি— ৬০

ডিআইসি/নোটিশ/একা/২০২৩ তারিখ: ১৩.০৮.২০২৩ খ্রি:

কলেজের সকল শিক্ষার্থীকে জানানো যাচ্ছে যে, আগামী ১৫ আগস্ট ২০২৩, মঙ্গলবার, সকাল ১০টায় কলেজপ্রাঙ্গণে জাতীয় শোক দিবস যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করা হবে। এ উপলক্ষে ১৪ আগস্ট কলেজে রচনা ও চিত্রাঙ্কন (বিষয়: শোকাবহ আগস্ট) প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে। অংশগ্রহণেচ্ছু শিক্ষার্থীদের ১৪ তারিখ পরীক্ষার পর উপস্থিত থেকে প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের জন্য নির্দেশ দেওয়া হলো।

মো: শিবলী সাদিক
অধ্যক্ষ
ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল কলেজ, ঢাকা

Disiplinary Notice

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল কলেজ
বিজ্ঞপ্তি— ৬৩

ডিআইসি/নোটিশ/প্রশা—২০২৩ তারিখ: ২৮.০৮.২০২৩ খ্রি:

কলেজের একাদশ শ্রেণির সকল শিক্ষার্থীকে জানানো যাচ্ছে যে, ২৯ আগস্ট ২০২৩ মঙ্গলবার থেকে সকাল ৮:৪৫মিনিটের মধ্যে যথাযথভাবে হেয়ার—কাট, ব্ল্যাক সু, টাই (ছেলেদের) ইউনিফর্ম (প্রাতিষ্ঠানিক পোশাক) এবং আইডি কার্ড পরিধান করে কলেজে আসতে হবে। এর ব্যতয় ঘটলে শৃঙ্খলাভঙ্গের দায়ে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মো: শিবলী সাদিক
অধ্যক্ষ
ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল কলেজ, ঢাকা

Blog (2)

Visiting Military Museum: An Outstanding Study Tour with DIC students

Visiting Military Museum: An Outstanding Study Tour with DIC students

Study tour, a break from routine classroom settings, injects enthusiasm and excitement
into the learning process. In fact, study tours can inspire students, reignite their passion for their
field of study, and motivate them to explore further. In order to fulfil this purpose, Daffodil
International College arranged a study tour at Bangabandhu Military Museum for its students’
holistic development.
On 27 May 2023, the students of class XI (session: 2022-23) along with their teachers
started for Bangabandhu Military Museum at 9.30 am. The museum is located at Bijoy Sarani,
Dhaka. It has a collection of Bangladesh’s military history, heritage, success stories and various
weapons and ammunition.
As the destination is not very far from college campus, we have decided to go on foot.
While crossing Manik Mia Avenue, the juvenile students had some snaps in front of the
Parliamentary Building. They were, really, excited and thrilled while marching towards the
destination. We reached the museum at 10.30 am and found that some of my fellow students had
already arrived at their most cherished destination.
After finishing the counting of the students, they entered the museum in a queue
maintaining discipline and rules of the institution. While exploring the museum, they observed
our heritage, success stories of our ancestors, wide implementation of Augmented Reality,
Interactive Displays, Virtual Reality, Holograms etc.

The museum is divided into six sections, including the Bangladesh History Gallery on the
ground floor, Bangladesh Army Gallery on the 2nd floor, Bangladesh Air Force gallery on the
3rd floor, UN Peacekeeping Gallery on the 4th floor, and Bangladesh Navy Gallery at the
basement.

There is also a separate museum named “Toshakhana Jadughor” within the museum
complex, where gifts and awards received by the country’s important personnel have been
showcased. A grand sculpture of Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman has been placed in the
middle of the “Toshakhana Jadughor”.

Our students got amazed looking at the awesome architectural design and infrastructure
inside the museum. The study tour came to an end almost at 1.00 pm. At the end of the tour, they
experienced a heavy rainfall poured down the city which made the day more memorable for
them. Due to excessive rainfall, we had to wait some more time at the museum. This study tour
and the rainfall made the students refreshed by removing the monotony of academics.
Overall, it was an unforgettable outing of the teachers and the students which will remain
forever in the memory and keep us invigorated again and again.
Finally, I would like to say that this kind of study tour offers unique opportunities for
students to learn, grow, and develop both academically and personally. Moreover, it provides
practical experiences through gaining knowledge and foster various skills that are essential to
achieve success in the academic and professional spheres.