কীভাবে বাংলাদেশে শুরু করবেন একটি NGO এর কাজ by Sazzad Hossain

কীভাবে বাংলাদেশে শুরু করবেন একটি NGO এর কাজ ?

আমাদের দেশে অনেকেই আছেন যারা বিভিন্ন ধরনের এনজিও প্রতিষ্ঠা করতে চান। কিন্তু তাদের অনেকেই যানেন না কিভাবে আইনগত বৈধতার মাধ্যমে একটি এনজিও এর কার্যক্রম শুরু করতে হয়।আসুন জেনে নেই কিভাবে বাংলাদেশে একটি এনজিও এর কাজ শুরু করবেন।

বাংলাদেশে এনজিও এর কার্যক্রম অথবা কোন স্বেচ্ছাসেবী কার্যক্রম পরিচালনা করার উদ্দেশ্যে দেশি কিনবা বিদেশি তহবিল পরিচালনা করার জন্য উক্ত সংস্থাকে প্রথমে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট নিবন্ধিত হতে হবে এবং সরকারের নিয়ম কানন মেনে চলতে হবে।

কৃষি, ত্রাণ, মিশনারি, শিক্ষা, সাংস্কৃতিক, বৃত্তিমূলক, সামাজিক, কল্যাণ ও উন্নয়নমূলক সেবা প্রদানের জন্য যে কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান তার নিজের ইচ্ছামত সংস্থা (আংশিক বা সম্পূর্ণ বাহ্যিক সহায়তার মাধ্যমে)
প্রতিষ্ঠা করতে পারবে।তবে অবশ্যই সেটা সরকার অনুমোদিত হতে হবে।

একটি আন্তর্জাতিক বেসরকারী সংস্থা (আইএনজিও) বা স্থানীয় ভিত্তিক বেসরকারী সংস্থা (এনজিও) নিবন্ধিত হওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে একটি আবেদনপএ দাখিল করতে হবে। এনজিও বিষয়ক ব্যুরো (এনজিওএবি) (যা বাংলাদেশের সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধীনে) এবং গৃহায়ন মন্ত্রণালয় হচ্ছে এই বিষয়ের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।মূলত এদের কাছেই আবেদন দাখিল করতে হয়।

প্রথমত এনজিও বিষয়ক ব্যুরো (এনজিওএবি)এর নিকট রেজিস্ট্যেশন করতে হবে। তারপর নির্ধারিত ফরমে এনজিওএবি এর প্রয়োজনীয় ফি এবং আনুসাংগিক সকল প্রকার নথিপএ যেমন কার্যকলাপ প্রতিবেদন, অভিপ্রায় পত্র, সংবিধান, রেজিস্ট্রেশন ফি ইত্যাদি এবং ট্রেজারি চালানের অনুলিপি জমা দিয়ে আবেদন করতে হবে।

এনজিওএবি তে আবেদন জমা দেওয়ার পর এটি পরিক্ষা-নিরীক্ষা করার জন্য সামাজিক কল্যান মন্ত্রণালয় এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে পাঠানো হবে ।নথিপএ গ্রহণের পর সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ পুলিশ ও বিশেষ গোয়েন্দা বাহিনীর ধারা আবেদনকারীর ব্যক্তিগত তথ্য
তদন্ত করে একটি তদন্ত রিপোট পাওয়ার পর তা এনজিওএবি কে দেওয়া হলে তারাপর্যালোচনার ধারা ডকুমেন্ট চুরান্ত করে সামনে আগাবেন।

আবেদন অনুমোদনে যে বিষয় গুলো মন্ত্রণালয় বিবেচনা করবেন তা হলোঃ-
নিবন্ধীকরণের জন্য এনজিও টি কোন প্রকার রাষ্ট্র-বিরোধী কাজ কিনবা সমাজ বিরোধী কাজ কিনবা কোন অপরাধ মূলক কাজের সাথে জরিত কি না।আবেদন কারী সংস্থার সদস্যের মধ্যে পারস্পারিক সম্পর্ক কেমন,তাদের সামাজিক মর্যাদা,সামাজিক কল্যান মূলক কর্মকান্ড,পূর্ববর্তী অভিজ্ঞতা, তাদের নিজস্ব অফিস আছে কিনা ইত্যাদি বিষয় আলোচনা করে কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নিবে
আবেদন অনুমোদন দিবে কি না।যদি আবেদন অনুমোদিত হয় তাহলে উক্ত এনজিও টি বাংলাদেশে কাজ করার অনুমতি পাবে।অন্যথায় তা বাতিল বলে গন্য হবে।

উক্ত কার্যক্রম সম্পূর্ণ করবে ৯০ কার্যদিবসে।তবে ক্ষেত্রবিশেষে এটি ৬ মাস ও লাগতে পারে।

সাজ্জাদ হোসেন

প্রভাষক

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল কলেজ

Tags: No tags
0

Comments are closed.